Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published
Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published

Rinki Banik Mondal

Classics


2  

Rinki Banik Mondal

Classics


ডানাকাটা পরী (বিষয়-রূপকথা)

ডানাকাটা পরী (বিষয়-রূপকথা)

2 mins 891 2 mins 891

স্বর্গে রূপনগরের রাজকন্যারা আজ মর্ত্যে ঘুরতে এসেছে। ইন্দ্র রাজার সাত কন্যা আজ তাদের ডানাগুলো নদীর ধারে খুলে রেখে একটি শহরে গেল। সাত বোন মিলে আজ শহরের বিভিন্ন রাস্তা ঘুরে বেরাতে লাগল। শহরের সকল মানুষ তাদের সুন্দর রূপে মুগ্ধ। সকল মানুষ ওদের দিকে তাকিয়ে আছে। কেউ কেউ তো ভালো-মন্দ উক্তিও করে দিচ্ছে ওদের দেখে। আরেক স্থানে এক বাড়িতে চেঁচামেচির আওয়াজ শুনে ওরা ওদের জাদু আয়না দিয়ে বাইরে থেকেই দেখলো এক স্বামী তার স্ত্রী'কে বলছে যে, তারা কন্যা সন্তান চায় না। ওরা তো এই দেখে আশ্চর্য হয়ে গেল। ওরা শহরের একটি হাসপাতালের সামনে দিয়ে গেল, সেখানেও দেখতে পেল একটা পরিবারে, মেয়ে সন্তান হয়েছে দেখে তারা অখুশি। সকল পরীরা মিলে আজ আলোচনা করলো এই সমাজের একটা কুৎসিৎ দিক সম্পর্কে। তারা দেখল এখানকার কিছু মানুষ সুন্দর মেয়েকে দেখে কটূক্তি করতেও ছাড়ে না,কিছু মানুষ সুন্দর বলে গুণ গানও করে, আবার কিছু মানুষ মেয়ে দেখলেই লোভের ফাঁদ পেতে তাদের ভোগ করতে চায়, আর কিছু মানুষ তো কন্যা ভ্রণকেই নষ্ট করে দেয়। ওরা সাত বোন আজ খুবই কষ্ট পেল। স্বর্গে তো কষ্ট কি জিনিস তা কোনোদিন ওরা চোখেই দেখেনি। কিন্তু আজ এই শহরে এসে বুঝতে পারছে মেয়েদের বড় কষ্ট। ওরা আবার সাত পরী নদীর ধারে ফিরে এসে নিজেদের ডানা লাগিয়ে নিল। ঠিক তখনই ওরা দেখলো একটি দম্পতি নদীর ধারের কৃষ্ণ মন্দিরে গিয়ে একটি সন্তানের জন্য খুব কান্নাকাটি করছে। ঠাকুরমশাইকে পুরুষটি বলছে, তার স্ত্রী নাকি কোনোদিন সন্তানের জন্ম দিতে পারবে না। তারা ঠাকুরের কাছে কেঁদে বলছে যে, তাদের শুধু একটা সন্তান চাই, সে ছেলে হোক বা মেয়ে। ওই দম্পতির কথা শুনে ওদের সাত বোনের বড় মায়া হল। ওরা বুঝতে পারল এখানকার সব মানুষ খারাপ নয়। সব থেকে বেশি খারাপ লাগল ওদের ছোট বোনের, মানে নীল পরীর। তাই নীল পরী ওর বাকি ছয় বোনকে বলল যে, সে আর স্বর্গে ফিরে যাবে না। এই মায়ের কোলেই ও জন্ম নেবে। স্বর্গে দুঃখ বলে কিছু নেই। তাই সুখটা নাকি ও উপভোগই করতে পারে না। তাই ও ঠিক করেছে এখানেই থাকবে। এখানে থাকলে ও দুঃখের মধ্যেও সুখের ঠিকানা খুঁজে বের করবে। কষ্টি পাথরে আগুন জ্বেলে ও ঠিক করলো ওর ডানা জোড়া পুড়িয়ে ফেলবে। ওদের বাকি ছয় বোন ওর এই প্রস্তাবে আর মানা করেনি। তবে ওরা মাঝে মাঝে সবার অগোচরে ওর সাথে দেখা করে যাবে ঠিক করলো।

এক বছর পর সেই দুঃখিনী মায়ের কোল আলো করে নীল পরী জন্ম নিল। সবাই ওকে দেখে বলল- "এত একেবারে ডানা কাটা পরী।"


Rate this content
Log in

More bengali story from Rinki Banik Mondal

Similar bengali story from Classics