Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published
Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published

Arunava Sar

Tragedy Thriller Children


3.8  

Arunava Sar

Tragedy Thriller Children


লকডাউন এর এক সন্ধ্যে

লকডাউন এর এক সন্ধ্যে

3 mins 76 3 mins 76

ঝড়ে আজ পুকুর এর রাস্তা বেয়ে উঠছে গাড়ি নিয়ে কে এক উঠোনে,

  " হরি , ওকে আটকাও " - চিৎকার এলো

    পুকুর পাড় থেকে ।

পাশে একটা রাজাদের আমলের বাংলো আছে।

বাংলোর এক দিক এর প্রায় বেশ অনেক টা

অংশ , দরজা - জানলা ভাঙ্গা , মন্দির ও আছে

বাইরে , ওখানে মন্দির এ পুজো হয় ,

মাঝখানের রাস্তা টা ঝকঝকে পরিষ্কার !

 সকাল সন্ধ্যা যখন ই তাকাও বাচ্ছা বেলা

 থেকে দেখছি নোংরা চোখে পড়ে না।

এক দিকে ঢুকে আরেক দিকে বেরোবার রাস্তা আছে

মধ্যিখানে আনাজ বিক্রিও হয় সন্ধেতে ,

 কিছু রকের ছেলে গাড়ি নিয়ে গাড়ি নিয়ে পুকুর এর রাস্তা বেয়ে ঢুকে বাংলোর পরিষ্কার রাস্তা দিয়ে

 বেরুতে দেখলে বাঁধা দেয় , আর দেবেই না কেনো

 প্রতিদিন সাফসাফাই করে !

  হরি একজন মালা - প্রসাদ ব্যবসায়ী , ও ই লোক ডেকে ঝাট দেওয়া করায় ।

    

   আমি জানলা থেকে সরে এলাম ।

   সেপ্টেম্বর এর এই মাঝামাঝি একে গরম , তারপর করোনা , 

  ব্রাউজারে কী একটা সার্চ করছিলাম , একটা

  ক্লায়েন্ট কে মেইল করতে হবে ৬ টার মধ্যে ।


আমি শ্রীরামপুর এ মামার কাছে এসেছি এক সপ্তাহ হয় এ গেছে ,প্রায় বেরোইনি ছ ' মাস কেটে গেছে ।


 টোকা টক মেসেজ ঢুকছে , গল্প বইটার ভেতর মোবাইল টা চাপা দেওয়া আছে । আজকাল একা যাওয়াটা অভ্যাস করে নিতে হোয়েছে ।

  প্রথমে জীবনটা এমনটা ছিলো না ।

দমকা ঝড়ে বই এর পাতাগুলো উড়তে শুরু করেছে।


আজকের দিনেই মনে পড়ে গেলো যখন আসতাম , 

বাড়িতে আলু বোম পড়ত , আজ বেশ একা একা লাগছে , মামার ছেলেটা এখন জয়েন্ট এরকোচিং করছে , একা ঘরে সারা দিন রাত পরে এক করে।

অন্যমনস্ক ভাবে মোবাইল টা তুলে নিলাম

ব্রাউজারে যা সার্চ করছিলাম , খুঁজে পেলাম না 

৫ টা ১০ !


এবার তো যা হোক রেডি করতেই হবে ,ভুলে গেছি একদম , কী সার্চ করছিলাম।


 হিস্টরি তে গিয়ে ক্লিক করলাম , একটা ডাইনোসর দাড়িয়ে ! 

 তার মানে  ইন্টারনেট কানেকশন নেই । 

 যাঃ !  

 ঠিকাছে , যা হোক একটা একটা কারণ 

  দিয়ে দেওয়া যাবে !।..

     অফিস তো আর যেতে হচ্ছে না !

  আরাম এখন ! .. ফ্যান এর রেগুলেটর টা ৫ দিয়ে , বিছানায় গা গল্প বইটার ওপর মাথা দিয়ে ঘুম ই এসে গেছিলো ,

  কী ঠিক তখনই টোকা টক মেসেজ

 খুলে দেখি - দুটো ইমেইল 

এক টা তে লেখা , " ফ্যান্টাস্টিক ওয়ারক "

সঠিক পৌঁছেছে , সেটা জানানো হয়েছে , 

অ্যাঁ ? আমি তো আজ ই এটা নিয়ে বসেছিলাম !

একবার আবার চেক করলাম , এতো ঠিক ই ।

আমাকে লিখেছে । ভুল করেও আমি কখন পাঠালাম মনে পড়ছে না !

দ্বিতীয় টা বোঝা গেলনা , খুললাম , কাল ছুটির কথা বলছে বোধয় ।


লজিক লাগালাম না,

চশমাটা বন্ধ করলাম , ডান্ডি টা ধরে সরালাম ।

ভুলে গেলাম বিকেলে চা খাওয়া হোয়নী ,

মেইল টা দেখে শান্তিতে 

এটা তো আরো ঘুম পাইয়ে দিল , এলিয়ে পড়লাম ।


ভ্রেরেরেরেরের.. ভাইব্রেশন এর শব্দ..

পায়ের তলায় চোখের সোজা সুজি ছিলো,

৮ টা ৩৫ , মোবাইল এর জলা আলোটা চোখে

পড়তে হুশ এলো , কিছু খাওয়া হোয়নি ।


একটা ফোন কল এসেছে ,

মিনিট খানেক ঘুমের ঘোর কাটতে চোখে 

পরলো , ক্লায়েনট এর কল ।


 কী মনে হতে মেইল চেক করলাম , 

  কোনো মেসেজ নেই ! রিফ্রেশ করলাম ,

  নেট তো আছে , একটু অপেক্ষা করলাম

না , কোনো মেইল নেই , 

তবে " congratulaton " কোথায় সব !

রিবুট করলাম, মিনিট খানেক বসে রইলাম 

কিছু নেই মেইল এ ।


নাকি সব ই স্বপ্ন ছিলো !  একবার ও হুশ ই হোয়নি ।  ঘোর বলে এখন যা মনে হচ্ছে , 

 তন্দ্রা তখন আসেওনি , তবে একি !  আজকের কাজ গেলো তবে !

পুরোটা তবে স্বপ্নই !

লকডাউন কী সব দেখাচ্ছে আজকাল ,

ঠিকাছে , আর কী করা যাবে !

 কিছু একটা ব্যবস্থা করেই নেওয়া যাবে না হয় !

ভাবতে ভাবতে আবার ঘোর আসছিল , 

না ! আর না ,

চশমাটা টেনে ব্যাগ থেকে মাস্ক এর সরি দুটো ধরে বার করে পড়লাম , স্যানিটাইজার টা বের করে হাতে নিয়ে আবার আটকে রাখলাম।

খাওয়া হয়নি কিছু চা - মুড়ি খেতে হবে ।

একটু বসে সিড়ি দিয়ে নেমে মামার ঘরের দিকে এগোলাম ।


Rate this content
Log in

More bengali story from Arunava Sar

Similar bengali story from Tragedy