Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published
Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published

Sudeshna Mondal

Drama


3  

Sudeshna Mondal

Drama


ঝিমলির শখ

ঝিমলির শখ

4 mins 2.3K 4 mins 2.3K

মানুষের জীবনে কত রকমের না শখ হয়৷ সেইরকম ঝিনুকেরও একটা শখ ছিল৷ নৃত্যশিল্পী হওয়ার শখ৷ অনেক বড়ো নৃত্যশিল্পী হবে ও৷ দূর দূরান্ত থেকে মানুষ আসবে শুধু ওর নাচ দেখার জন্য৷ অভাবের সংসারে মেয়ের এই শখ পূরণ করতে পারেনি ওর বাবা-মা৷ তাও পাড়ার ক্লাবের দৌলতে একটু-আধটু নাচ শিখেছিল৷ পাড়ার ছোটখাটো অনুষ্ঠানে আর সবার সাথে ঝিনুকও নাচে অংশগ্রহণ করত৷ কিন্তু এই শখ যে ওর জীবনটাকে অন্য খাতে বয়ে নিয়ে যাবে সেটা ওর জানা ছিল না৷ এরকমই পাড়ার একটা অনুষ্ঠানে ওর সাথে আলাপ হয় রমেশের৷ দেখতে সুন্দর হওয়ায় প্রথম দেখাতেই ঝিনুককে ভাল লাগে রমেশের৷ রমেশও দেখতে যথেষ্ঠ ভালই৷ তাই অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই ওদের এই ভালো লাগা ভালবাসায় পরিনত হয়৷ ওর শখ পূরণের প্রতিশ্রুতি দেয় রমেশ৷ সেদিনের কিশোরী ঝিনুক যদি উঠতি বয়সের ভাললাগাকে ভালবাসা ভেবে ভুল না করত তাহলে হয়তো ওর জীবনের রেখাচিএটা অন্য রকম হত৷ যাকে ভালবেসে দেবতার আসনে বসিয়ে ছিল সে যে আসলে মানুষরুপী শয়তান সেটা ও বুঝতে পারেনি৷ যখন বুঝেছিল তখন আর করার কিছুই ছিল না৷ যে রমেশ-কে ভালবেসে নিজের সবকিছু উজাড় করে দিয়ে বাড়ি-ঘর, আত্মীয়স্বজন সব ছেড়েছিল সে যে শুধু ওর শরীরটাকেই ভালবেসে ছিল ওকে নয় সেটা ও বুঝতেই পারে নি৷ ও কোনদিন স্বপ্নেও ভাবতে পারে নি যে রমেশের চাহিদা মিটে গেলে ও ওকে এই নরকের আস্তাকুঁড়ে ফেলে দিয়ে যাবে৷ আর ওর জায়গা হবে এই বেশ্যাপাড়ায়৷ আর ও হয়ে উঠবে আজকের ঝিমলি৷

যে এক নজরেই সমস্ত পুরুষের মনে ঝড় তুলে দিতে পারে৷ ওর শখ অবশ্য পূরণ করেছে রমেশ৷ এখন ও প্রতিদিনই নাচে, ওর নাচ দেখতে লোকও আসে৷ শুধু একটাই তফাত৷ ও হতে চেয়েছিল নৃত্যশিল্পী ঝিনুক আর হয়ে গেছে এই কোঠাবাড়ির ঝিমলি৷ ঠোঁটে লিপস্টিক লাগাতে লাগাতে এতক্ষণ ধরে এসবই ভাবছিল হঠাৎ চম্পার ডাকে ওর হুশ ফেরে৷ চম্পা এসে বলে নীচে এক ভিখারী এসেছে সে অনেকক্ষণ ধরে ঝিনুক নামে কাউকে খুঁজছে৷ ওনাকে অনেকবার বলা হয়েছে এই নামে এখানে কেউ থাকে না কিন্তু উনি শুনছেন না৷ এই নামটা শুনে প্রথমে ঝিমলি অবাক হলেও সেটা মুখে প্রকাশ না করেই বলে--ওই ভিখারীকে বল ঝিনুক অনেকদিন আগেই মারা গেছে এখন শুধু ঝিমলি আছে, ঝিমলি৷ চম্পা কিছু বুঝতে না পেরে চলে যায় কিন্তু ঝিমলির চোখের কোণটা না চাইতেই ভিজে যায়৷ কিছুক্ষণ পরে চম্পা এসে বলে ওই ভিখারীটা নাকি ঝিমলিকে একবার দেখতে চায়৷ কাজের সময় এসব অদ্ভুত আবদার শুনে ঝিমলির মাথা রাগে গরম হয়ে যায় তাও নীচে গিয়ে দেখে কে সেই ভিখারী যে ওকে দেখতে চায়৷ গিয়ে যাকে দেখল তাকে যে এতবছর পরে দেখবে তাও আবার এই বেশে সেটা ও ভাবেনি৷ যে শয়তানটা ওর জীবনটা এইভাবে তছনছ করে দিল তাকে আজ এই অবস্থায় দেখে ওর তো আনন্দ হওয়ার কথা কিন্তু ওর কেন যে কষ্ট হচ্ছে কে জানে৷ তাহলে কি আজও ও রমেশকে ভালবাসে সেই প্রথমদিনের মতই৷ ও এসব কি ভাবছে নিজের মনেই বলে ওঠে৷ এই শয়তানটা ভালবাসার কিছু বোঝে নাকি৷ এতো শুধু নারী শরীরটাকেই বোঝে৷ যতটা সম্ভব মুখটা কঠিন করেই জিজ্ঞেস করে কি চাই আপনার৷ রমেশ এরকম একটা ব্যবহার আশা করেনি৷ ও ভেবেছিল ঝিমলি ওকে চিনতে পারবে৷ তাই প্রথমে হকচকিয়ে গেছিল৷ কিন্তু নিজেকে সামলে নিয়ে আবার জিজ্ঞেস করে--আমাকে চিনতে পারছ না? ঝিমলি ততটাই রেগে গিয়ে বলে--কি চাই বলবেন তো কাজের সময় এসব ফালতু কথা ভাল লাগে না৷ আমার তাড়া আছে তাড়াতাড়ি বলুন তো কি চান৷

রমেশ এবার ব্যঙ্গের সুরে বলে ওঠে--কি এমন কাজ কর যে একটু দেরী হলে গোটা পৃথিবী উলটে যাবে৷ ঝিমলি মনে মনে ভাবে রমেশ হচ্ছে 'ভাঙব তবু মচকাব না' এমন ধরনের মানুষ৷ পকেটে ফুটো কড়ি নেই তাও তেজ কমেনি এক আনাও৷ ঝিমলি আবার জিজ্ঞেস করে কি চাই৷ এবার রমেশ নরমভাবেই বলে--একটু জল দেবেন খাব আর তার সাথে যদি কিছু খাবার দেন তো ভাল হয়৷ আসলে দুদিন ধরে কিছু খাইনি তো৷ এতক্ষনে ঝিমলি বুঝতে পারে ওর এখানে আসার আসল কারনটা৷ ওকে বসতে বলে ঝিমলি ভেতরে যায় ওর জন্য খাবার আনতে৷ ঝিমলি মনে মনে ভাবে ভাগ্যের কি পরিহাস৷ এতবছর ধরে যে সুযোগটার জন্য ও অপেক্ষা করেছে সেটা আজ যখন পেয়েছে তখন ও সেটাকে কিছুতেই নষ্ট হতে দেবে না৷ কিছুক্ষণ পরে ঝিমলি খাবার নিয়ে আসে৷ খেয়ে দেয়ে রমেশ চলে যায় আর যেতে যেতে বলে যায় --"আবার আসিব ফিরে, তোমার এই কোঠাবাড়ির দোরে৷" ঝিমলি মনে মনে শুধু হাসে ৷রাস্তায় যেতে যেতে রমেশের মাথাটা সামান্য ঘুরে যায়, চোখের সামনে সব কিছু ঝাপসা লাগে৷ হঠাৎ কি হল কে জানে, এতক্ষণ তো সবকিছু ঠিকই ছিল নিজের মনেই বলে ওঠে রমেশ৷ টলতে টলতে এলোমেলোভাবে রাস্তা পার হতে গিয়ে সামনে থেকে আসা লরিটা কখন যে ওর একদম সামনে এসে গেছে সেটা ও খেয়ালই করেনি৷ এক সেকেন্ডের মধ্যে সব শেষ৷ রাস্তায় রক্তাক্ত শরীরে যন্ত্রণায় ছটফট করতে করতে রমেশ শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে৷ পরেরদিন চম্পা এসে ঝিমলিকে বলে--কালকের ওই ভিখারীটাকে কাল রাতে লরিতে ধাক্কা মেরেছে, মুখ দিয়ে নাকি গেঁজাও বেরিয়েছে, বডিটা এখনও রাস্তায় পড়ে আছে৷ পুলিশ এখনও বডিটা নিয়ে যায়নি৷ রাস্তার কুকুরগুলোও ধারে ঘেষছে না৷ ঝিমলি মনে মনে ভাবে --ওর মত শয়তানকে কুকুর কেন চিল শকুনেও ছুয়ে দেখবে না৷ এরপর তাকের ওপর রাখা বিষের শিশিটা জানলা দিয়ে দূরে ছুড়ে ফেলে দেয়৷ আজ ও ভীষণ খুশি৷ যে ওর জীবনটা নরক বানিয়ে দিয়েছিল তাকে মৃত্যুর কোলে পাঠিয়ে ও যে ওর প্রতিশোধ নিতে পেরেছে৷ এবার যে ও শান্তিতে মরতে পারবে৷

(সমাপ্ত )


Rate this content
Log in

More bengali story from Sudeshna Mondal

Similar bengali story from Drama