Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published
Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published

Aneek Pilsima

Abstract Others


3  

Aneek Pilsima

Abstract Others


Switch (inspired by Human evolution)

Switch (inspired by Human evolution)

4 mins 48 4 mins 48

                     1

এক অচেনা গুহার দুর্ভেদ্য অন্ধকারের মধ্যে একটু দৃঢ় ভাবে দৃষ্টি নিক্ষেপ করলেই সেই অদ্ভুত জীবটি কে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে। যার শরীরের দুই বিশেষ অঙ্গের মধ্যে এখন দুটি পাথর সীমাবদ্ধ। সে অনেকক্ষণ ধরে ওই দুই পাথরকে একে অপরের সাথে তীব্র সংঘর্ষের মাধ্যমে আগুন তৈরি করার চেষ্টা করছে। কিছুতেই আশানুরূপ ফল পাচ্ছে না। অথচ সে বদ্ধপরিকর। আজকে তাকে কাজটা শেষ করতেই হবে।


তাঁর ভালবাসার...


এখানে বলে রাখা ভাল, এই যে জীবটির বিষয়ে আমরা কথা বলছি, তাঁকে আমরা আমাদের ভাষায় বলি The prehistoric man। যাই হোক, আবার গল্পে ফেরা যাক।


তাঁর ভালবাসার মানুষটির প্রতিকৃতি সে আজ গুহার গায়ে আঁকবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। একটু স্মৃতি রোমন্থন করলেই পাওয়া যাবে যে, তাঁদের দলের সর্দার, প্রথম এই আঁকার পদ্ধতি তাঁদের হাতে ধরে শিখিয়েছিলেন। তবে এই আগুনের ব্যাপারটা তাঁর কাছে নতুন। দূর দেশ থেকে আসা দলের এক নতুন সদস্য এই অভাবনীয় আবিষ্কারের সাথে তাঁদের ওয়াকিবহাল করেছেন। বেশ রোমাঞ্চকর একটা অনুভূতি। এখন অবলীলায় সে যে কোনো সময়ে আঁকায় মনোনিবেশ করতে পারবে, এমনকি গভীর রাতেও, যখন সবাই ঘুমায়।


গুহাটির সাথে জীবটির সম্পর্ক বেশ পুরনো। মাঝে মাঝে যখন সে, তাঁদের দলের নিয়ম কানুন, রীতিনীতি থেকে পালিয়ে আসতে চায়, তখন এটাই হয়ে ওঠে তাঁর জন্য যথাযথ স্থান। নিজের সাথে সময় কাটানোটা বোধহয় সবথেকে বেশি জরুরি।


আগুনটা অবশেষে জ্বলে উঠল। এবার সে আঁকাটা শুরু করতে পারবে। তাঁর প্রথম গভীর রাতের শিল্প, এবং সে যে সেটা তাঁর সবথেকে প্রিয় মানুষটির স্বৃতির চরণে অর্পণ করছে, এটাই অনেক।


যেই মুহুর্তে তাঁর চোখের সামনে এক নারীর অবয়ব ফুটে উঠছে, ঠিক তখনই তাঁর দৃষ্টি পড়ল একটি জিনিসের প্রতি। জিনিসটি গুহার ঠিক মুখে পড়ে রয়েছে। তাঁর আকৃতি, এক খুব চেনা পোঁকার সাথে সম্পূর্ণ মিলে যায়। একটি ছোট শরীর এবং সেটির মাথা থেকে তিনটি সুর বেরিয়ে রয়েছে। সেই তিনটে সুরের মধ্যে একটির রঙ গাছের পাতার সাথে মিলে যাচ্ছে, একটির রঙ মাটির সঙ্গে মিশে যাওয়া রক্তের সাথে, এবং আরেকটির রঙ ভোরের আকাশের সাথে, তবে আরেকটু গাঢ়। কিন্তু আশ্চর্যের ব্যপার হচ্ছে, পোঁকার মত এটি সজীব নয়। কারণ সে বেশ কয়েকবার টোকা মেরে দেখেছে, সেটি প্রতিক্রিয়া শূন্য।


আরেকটি উলে­খযোগ্য বিষয় হল, এই বস্তুটির শরীরে দুটি চিহ্ন আঁকা রয়েছে, যে আঁকার পরিকাঠামোটা অনেকটা তাঁদের আঁকার ধরণের সাথে মিলে যাচ্ছে। সেই দুটি চিহ্ন হল -

                  "O N"

                 "O F F"

এবং এই চিহ্নদুটি, শরীরের মধ্যে এক চৌকো গর্ভের ভিতরে বসানো, নাকের মত আকৃতির এক বস্তুর, উপরের দুই বিশেষ জায়গায় আঁকা রয়েছে। 

এর পরই এক মজাদার ঘটনা ঘটল। 

বস্তুটির নাকের ডগার উপরে "O N" চিহ্নটির ওপর হাত দিতেই, সেটি গর্ভের মধ্যে ঢুকে গেল আর "O F F" চিহ্নটির স্থান উঠে গিয়ে হয়ে গেল নাকের ডগা !

  

                    2

মানব সেন । 

বয়স ২৭ । 

General manager@Humanoid । 

বাসস্থান- বালিগঞ্জ,কলকাতা । 

 রিলেসনশিপ স্টেটাস - সিংগল।

দুর্ভেদ্য অন্ধকারে আচ্ছন্ন এক সুবৃহৎ কক্ষের মধ্যে একটু দৃঢ় ভাবে দৃষ্টি নিক্ষেপ করলেই সেই অদ্ভুত জীবটিকে দেখতে পাওয়া যায়। একটি ছোট কাঁচের জানালা দিয়ে জ্যোৎস্নার আলো ঢুকছে বলে, কক্ষের বর্তমান পরিস্থিতিটা একটু হলেও বোঝা যাচ্ছে। পুরো ঘর জুড়ে শুধু মাটিতে বই ছড়ানো। তাদের মধ্যে একটি ভাঙা ফুলদানিও চোখে পড়ে। সেই ফুলদানির ভিতর থেকে জল বেরিয়ে অনেক বই ভিজিয়ে দিয়েছে। তবে ফুলগুল এখনও সম্পূর্ণ সতেজ। মানব সেন রচিত- "The android human" এর কভার সম্পূর্ণ ছিঁড়ে গেছে। অনেক দুষ্প্রাপ্য Antique শ্বেত পাথরের টাইলস এ নিজেদের প্রতিচ্ছবি অনুভব করছে। দেওয়ালে টাঙানো Argentina "Hands Cave" এর ছবির ফ্রেম ভেঙে চুরমার। এই সবকিছুর মধ্যে ঘরের এক অন্ধকার কোণে অদ্ভুত জীবটি মাথা নিচু করে বসে রয়েছে।

ঐন্দ্রিলার সাথে Brea...

এখানে বলে রাখা ভালো, এই যে অদ্ভুত জীবটিকে নিয়ে আমরা কথা বলছি, আমাদের ভাষায় তাদের বলা হয় The Modern Man

যাই হোক, গল্পে ফেরা যাক।ঐন্দ্রিলার সাথে Break up টা সত্যি খুব আকস্মিক। হঠাৎ আজকে বিকেলে সে ফোন করে মানব কে স্পষ্ট জানিয়ে দেয় যে তার সাথে থাকা আর সম্ভব হয়ে উঠছে না। কারণটাও অদ্ভুত, ঐন্দ্রিলার নাকি দম বন্ধ লাগে এই সম্পর্কে।

মানব সেন, যে নিজে Human Origin নিয়ে গবেষণা করে, তার পক্ষে এক নারীর গতিবিধি বুঝতে না পারাটা বেশ হাস্যকর। তার ওপর আজকে সে এক খারাপ খবর পেয়েছে। যে site টি তে তারা গত ২ মাস ধরে খোদাই করছিল, সেখানে ঐতিহাসিক মানুষ বসতির কোন চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ৩ বছরের কেরিয়ারে তার সবথেকে বড় হার। A complete waste of money, energy and devotion; যে তিনটি জিনিস নাকি মানব জাতির সম্পদ।

এতদিনের Rat Race, competition, business set up, rising the social ladder,private resort, AUDI and discovering humans - সব মিথ্যে।

iPhone এর ভাঙা স্ক্রিনে মানব সেন তার মুখটি দেখতে পাচ্ছে, বিকৃত। WiFi এর মিট্মিটে আলোটি তার চোখের জলের সাথে এক অদ্ভুত খেলায় মত্ত। 

ঐন্দ্রিলা র মুখটা বার বার তার চোখের সামনে ফিরে ফিরে আসছে। চোখ বন্ধ করলেও সেই একি ব্যাপার।"The human race is a monotonous affair" - কথাটি তার চিন্তাশক্তিকে আস্তে আস্তে গ্রাস করছে।

হঠাৎ করে টেবিল ল্যাম্পটি জ্বলে উঠতেই, সে হতভম্ব হয়ে চেয়ার ছেড়ে উঠে দাঁড়াল। যাহ শালা, এটা কি করে হল? সে তো সুইচ "ON" করেনি। তার উপরে, সে এখন সম্পূর্ণ একা! 

This is unbelievable

মানব সেন উঠে, ল্যাম্পটির কাছে গেল। ঘড়ের অবস্থাটা সত্যি খারাপ। এবার পরিষ্কার করা দরকার। চারিদিকে চোখ বোলাতেই তার দৃষ্টি পড়ল একটি বিশেষ জায়গায়। শ্বেত পাথরের ফ্লোরের ওপর বসানো একটি তেপায়া টেবিল, কিছু ছড়িয়ে থাকা পেন, পেন্সিল, খোলা বইয়ের পাতা, ভাঙা কাঁচের টুকরো ও ঐন্দ্রিলার দেওয়া একটি গোল ক্রিস্টাল গ্লাস বল এর ছায়াগুলি মিলেমিশে এক বিশেষ আকৃতির সৃষ্টি করেছে। এবং এই ম্যাজিকটির কৃতিত্ব একমাত্র দেওয়া যায় টেবিল ল্যাম্পের আলোটিকে।

মানব সেন লক্ষ্য করল তার চোখ অশ্রু জলে সিক্ত। সে মুগ্ধ হয়ে দেখছে ছায়াটিকে।

বিকৃত হলেও সেটি যেন কোনো আদিম যুগের গুহার গায়ে আঁকা, এক অসম্পূর্ণ নারীর অবয়ব !


                                                                                     


Rate this content
Log in

More bengali story from Aneek Pilsima

Similar bengali story from Abstract