Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published
Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published

AYAN DEY

Inspirational


3  

AYAN DEY

Inspirational


হীরেনের বিশ্বাস

হীরেনের বিশ্বাস

3 mins 367 3 mins 367

ধর্মবাগ জেলার অর্চিস্পুর অঞ্চলে দুদিন আগে একটা ব্যাপার ঘটেছে । পাথরের একটা চাঁইয়ের উপর অঞ্চলের লোক ভক্তির জোরে দুধ , জল , ডাবের জল ঢালতো । পাথরটি একটি মন্দিরে প্রতিষ্ঠার ব্যবস্থাও করেছে লোকেরা ।

দুদিন আগে হঠাৎ করে জানকীনাথ বাবু সকালে এসে দুধ ঢেলে দেখেন দুধ বাইরে না পড়ে সব ভেতরে চলে যাচ্ছে । অমনি উনি " জ​য় মহাদেবের জ​য় " বলে গোটা এলাকায় জ​য়ধ্বনি করতে লাগলেন ।

ব্যাস আর লোকজন সব্বাই একে একে এসে শিলার উপর দুধ , জল ও তরলাদি ঢালতে লাগলো । সব টেনে নিলো মহাদেবের শিলা ।

ঠিক পরদিন মন্দিরের পুরোহিত শিলা ধরে সরিয়ে ফুল , মালা পরিষ্কার করতে গিয়ে দেখেন সরাতে পারছেন না । সে কী প্রচন্ড ভারী ! ব্যাস তিনি উল্লাসে নেচে বলে উঠলেন , " বাবা ভোলানাথের কি অপরূপ মাহাত্ম্য গো , দেখো দেখো বাবার ওজন বেড়ে গেছে । মন্দির ছেড়ে বাবা আর যাবেন না । "

সেই থেকে দুদিন হলো মন্দিরে আনন্দ উৎসব অনুষ্ঠান চলছে । হীরেন প্রায় একবছর পর বিদেশ থেকে এসেছে অর্চিস্পুরে । এই মন্দির সে দেখেনি । তার বিষয়ে শুনে আর তার মাহাত্ম্যের গল্প শুনে সে রীতিমতো অবাক হলো । সেই সঙ্গে তার প্রচণ্ড রাগ হলো । ভগবান নাকি ওজনে বাড়ছেন ! 

সে বাড়ি গিয়ে বাবাকে বললো , " বাবা গ্রামে কী শুরু হয়েছে ? "

জানকীবাবু বললেন , " যা জানিস না তা নিয়ে কথা বলবি না । আমার সামনে ঘটনাটা ঘটেছে । "

হীরেন তো রাগেই অস্থির । একবছর পর সে ফিরে এই জিনিস দেখে ফিরেই যাবে ঠিক করে একদিনের মধ্যে । যাওয়ার টিকিট বেশী দিয়েই বুক করে ।

ঠিক বেরোনোর দিন দুপুরে তার শরীরটা ভীষণ খারাপ করে । মাথা ধরে তার , গা ম্যাজম্যাজ করে । ক্রমে জ্বর আসে । তবুও সে গোঁ ধরে আজই চলে যাবে ।

মা জানতে পারলে রে রে করে তেড়ে আসেন । " কী বাবু , তোর কি মাথা খারাপ হলো ? "

" হয়েছে তোমাদের , এই পাগলামিতে নইলে মেতে থাকতে না । "

" পাগলামি বলছিস তো দাঁড়া তোর জন্য বাবার গায়ে লাগা দুধের ফোঁটা নিয়ে আসি , দেখ কী হ​য় । "

এসব শুনে হীরেনের জ্বরের চেয়েও আরও কষ্ট বেড়ে গেলো । বাবার দুধের ফোঁটা মা এনে ছেলের মুখে লাগিয়ে দিলেন । ইতিমধ্যে অনলাইনে ডাক্তারের সাথে কনসাল্ট করে সে ওষুধ কিনে খেয়ে জ্বর থেকে খানিক মুক্তি পেয়েছে । লম্বা যাত্রার ধকলেই শরীর খারাপ । এদিকে মায়ের বিশ্বাস স্পষ্ট হলো যে বাবার গায়ের দুধের ফোঁটাটেই ছেলের জ্বর কেটেছে ।

যাই হোক লাগেজ নিয়ে ফিরতে গিয়ে মনে হলো শরীরটা আরো ভালো হয়েছে । মনটা কেমন জানি মন্দিরের দিকে টানলো । সে লাগেজ নিয়েই মন্দিরের দিকে এগিয়ে গেলো । সাথে তার হেয়ার অয়েলের একটা শিশি ছিলো । কি মনে হলো খানিক ঢেলে দেখতে গেলো । একি এ তো সত্যি কথা , তেল পাথরের মধ্যেই চলে যাচ্ছে । কীরকম অদ্ভুত একটা শক্তির টান অনুভব করতে লাগলো ।

এমন সম​য় পিছন থেকে মায়ের গলা শুনে সে চমকে গেলো । " কি রে বিশ্বাস হলো তো ? "

হীরেন চুপ । সে যাওয়া ক্যান্সেল করে থেকে গেলো । মন্দিরে প্রতিদিন পুজো দিতে শুরু করলো । তার এক বন্ধু এক মাস পরেও তার না ফেরা দেখে ফোন করলো । সব কথা শুনে চমকে গেলো ।

সেই বন্ধু নিজে হীরেনের বাড়ি এলো । মন্দিরে সেদিনই গেলো হীরেনের সাথে । সকলের আড়ালে শিলা নাড়িয়ে দেখলো শিলার এক পাশে গভীর ফাটল । সে হীরেনকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখালো । হীরেন কেমন যেন ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে দাঁড়িয়ে রইলো ।


Rate this content
Log in

More bengali story from AYAN DEY

Similar bengali story from Inspirational