Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published
Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published

Rakesh Paul

Classics


5.0  

Rakesh Paul

Classics


সময়ের রূপান্তরণ

সময়ের রূপান্তরণ

2 mins 924 2 mins 924

একদিন হটাৎ দাদুর সঙ্গে গল্পে মেতে উঠি ,কথা হচ্ছিল খুব কথায় কথায় ওপাড়ার জসিম ঠিকাদারের কথা সামনে উঠে এলো। আমি দাদু কে জিজ্ঞাসা করলাম দাদু জসিম ঠিকাদার কেন বাইরে থেকে বিভিন্ন গাছের চারা নিজ টাকায় কিনে এনে বিনামূল্যে তা বিতরণ করেন । আবার কারও যদি অনুমতি থাকে তাহলে তার জমিতে নিজে গিয়ে বৃক্ষ রোপনও করেন , দাদু বললেন এর পিছনে সময়ের এক বিশেষ রূপান্তরণ এর গল্প রয়েছে ,, এরপর দাদু বলতে শুরু করলেন সময়টা ছিল 1990 সাল কলকাতার ছেলে জসিমউদ্দিন শেখ ছিলেন বড় মাপের একজন ঠিকাদার । তিনি তার ছেলে এবং স্ত্রী কে নিয়ে 1988 সালেই পুরুলিয়া চলে আসেন । তার কাজ ছিল জঙ্গলের গাছ কেটে তা বাইরে রপ্তানি করা এর জন্য তিনি বড়ো বড়ো সরকারি আমলাদের গোপনে ভারী টাকা ঘুষ ও দিতেন । আর এই পেশায় তিনি অগাধ অর্থ উপার্জন ও করতেন । এভাবেই চলতো তার দিনক্ষণ , নিজের প্রতি তার বিশাল অহংকার ও ছিল । তাছাড়া অহংকার হবে নাই বা কেন সেইসময় কোটি কোটি টাকার মালিক তিনি , টাকা ছাড়া আর কিছুই চিনতেন না । ছেলে তার সেই সময় জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয় এ পড়তেন। তার ছেলে জামসেদ ছিল একজন বড়ো মাপের উদ্ভিদ প্রেমী । মাস্টার ডিগ্রি সমাপ্ত করার পর জামসেদ পুরুলিয়া জেলার অরণ্য ধ্বংসের কারণ খুঁজে বের করার জন্য গবেষণায় যোগ দেন । এরপর ক্রমে ক্রমে জামসেদ তথ্য অনুসন্ধান করতে থাকে । দেখে একসময় পুরুলিয়া জেলায় 30 লক্ষ অরণ্য ছিল আজ তার সংখ্যা 9 লক্ষ এর কারণ খুঁজতে গিয়ে তিনি আরো গভীর অনুসন্ধান চালান ,এবং তার কাছে এমন এক তথ্য উঠে আসে যা দেখে সে হতাশায় ভেঙে পড়ে । কারণটা ছিল পুরুলিয়া জেলাতে অরণ্য ধ্বংসের পিছনে যে বড় বড় কারণগুলো ছিল তার মধ্যে বিশেষ গুরুপ্তপূর্ণ কারণ হচ্ছে প্রলোভন । অর্থাৎ তার বাবাই অর্থের জন্য বিভিন্ন আমলা ও নেতাদের সঙ্গে মিলিত হয়ে গাছ কেটে তা বাইরে রপ্তানি করতেন এই তথ্য যখন জামসেদ এর কাছে উঠে এলো তৎক্ষণাৎ বারান্দার রং টকটকে লাল হয়ে উঠলো একটা প্রাণ যেন মুক্তি পেল,সূর্যের প্রখরতা যেন ফিকে হয়ে পড়লো, আর ফটিক পাথরের মহল যেন শুন্যতায় রূপান্তরিত হলো, একটা নিষ্পাপ প্রাণ চলে গেল আসলে সে তো ছিল খুবই উদ্ভিদ প্রেমী তাই এই অভিশাপ সে বহন করে নিতে পারলোনা । হটাৎ জসিমের স্ত্রী তা দেখে তিনিও হার্ট আটক হয়ে মারা গেলেন, জসিমের স্বপ্ন যে টাকায় সে বিশাল অট্টালিকায় সস্ত্রীক ও একমাত্র আদরের পুত্র ভোগ করবে তা আজ একগুচ্ছ চারাগাছের বাসস্থান। জসিম এই ঘটনার পর ছেলে এবং বউ এর মৃত্যু শোক এ এই শপথ নিলেন তিনি যতগুলো গাছের প্রাণ নিয়েছেন তার দশগুণ বৃক্ষ রোপন করে তার পুত্রের আত্মার শান্তি কামনা করবেন তাই তার এই অভিরূপ পদক্ষেপ। এই ছিল জসিমউদ্দিন এর গল্প যা সময়ের এক রূপান্তর কে চিহ্নিত করে।


Rate this content
Log in

More bengali story from Rakesh Paul

Similar bengali story from Classics