Click here to enter the darkness of a criminal mind. Use Coupon Code "GMSM100" & get Rs.100 OFF
Click here to enter the darkness of a criminal mind. Use Coupon Code "GMSM100" & get Rs.100 OFF

Ashfia Parvin

Inspirational Children


5  

Ashfia Parvin

Inspirational Children


লেখাপড়া

লেখাপড়া

4 mins 1.4K 4 mins 1.4K


  আপনার মনেও কি প্রশ্ন জাগে আমরা কেন পড়াশুনা করি? আমরা লেখাপড়া করি যাতে ভালো চাকরি পেতে পারি এবং সমাজের চোখে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারি, সেজন্য লেখাপড়া করি? আপনি কি স্কুল, কলেজে পড়ার সময় খুব বিরক্ত? শিক্ষার প্রকৃত অর্থ কি? আমরা কেন পড়াশুনা করি?এবং এই সমাজগুলো কি আপনার কোনো ভুলের জন্য আপনাকে দোষারোপ করে বা আপনাকে নিয়ে মজা করে? আরে! ভাই!ভুল সবার হয়। ঠিক আছে. ভুলবশত আমরা শিখতে পারি।আর হ্যাঁ, সবচেয়ে বড় সমস্যা হল আমরা যে বিষয়ে আগ্রহী থাকি সেই বিষয়ে পড়তে পারি না এবং যে বিষয়ে আমাদের আগ্রহ নেই তা পড়াতে বাধ্য হয়ে পরীক্ষায় খারাপ নম্বর নিয়ে আসে। কিন্তু আমাদের বলা হয় হেরে যাওয়া, গাধা আর শূন্য আর কি নাম জানি না। এই সমাজ বুঝতে প্রস্তুত নয় যে সবাই আলাদা এবং প্রত্যেকেরই কিছু না কিছু আছে।  এমনি উপরবালা কাউকে তৈরি করে না। সবাই বিশেষ, শুধু তাদের আসল প্রতিভা চিনতে হবে। দোষ শিক্ষা ব্যবস্থার কিন্তু এখন নতুন নীতি এসেছে ৫ ৩ ৩ ৪ যা খুবই ভালো। কিন্তু কবে তা বাস্তবায়িত হবে জানি না? দুঃখের বিষয় আমাদের ভাগ্যে এমনটা হয়নি।


 হ্যাঁ, তাই এখন এই গল্প শুরু করা যাক.







 এই গল্পটি একজন স্কুল ছাত্রীকে নিয়ে যার নাম আয়েশা। আয়েশা একটি 16 বছর বয়সী মেয়ে যে 12 তম শ্রেণীতে আর্টস নিয়ে পড়াশোনা করে। আয়েশার পরিবারে আয়েশার বাবা-মা, দাদা ও বৌদি থাকেন। আয়েশা অনেক বন্ধু পছন্দ করে না, আয়েশা শুধুমাত্র সত্যিকারের বন্ধু চাই এবং তাই আয়েশার মাত্র দুটি সত্যিকারের বন্ধু ছিল। আয়েশা একজন ইন্ট্রোভার্ট , যার কারণে সে কারও সাথে ভালভাবে মিশতে পারতো না।



 আয়েশার বেশির ভাগ সময় বইয়ের মাঝে কাটতো । কখনো আয়েশা পরীক্ষায় ভালো নম্বর পেতো আবার কখনো মোটামোটি নম্বর আনতো । এমন করতে করতে দ্বাদশ স্থানে পৌঁছে গেলেন। অন্যান্য শিশুদের মতো আয়েশাও অনেক স্বপ্ন দেখতো । আয়েশার প্রথম স্বপ্ন ছিল সে বড় হয়ে ডাক্তার হবে, তারপর মহাকাশচারী হওয়ার স্বপ্ন, তারপর আইনজীবী, তারপর আবার সৈনিক হওয়ার স্বপ্ন।  আই. পিএস তারপর সিআইডি না জানে আরো কত স্বপ্ন ছিল ।  


 এটা একদিনের কথা যখন আয়েশা সন্ধ্যায় স্কুলের হোমওয়ার্ক করতে বসেছিল, তখন আয়েশার বেস্ট ফ্রেন্ড নেহার ফোন আসে।

 নেহা:- "হ্যালো! আয়েশা"

 আয়েশা:-"হ্যাঁ বল নেহা"

 নেহা:-"আজ স্কুলে আসিস নি কেন? খারাব খবর আছে।"

 আয়েশা:-"হ্যাঁ, জানি , অর্থনীতি পরীক্ষায় 4/20 নম্বর পাইছি । তাই তো?"

 নেহা:-"হায় ভগবান! আয়েশা তুমি এত নিশ্চিন্ত হয়ে কিভাবে কথা বলতে পারো? এখন পর্যন্ত তোমার সব পরীক্ষায় এটাই তোমার সবচেয়ে বাজে পরীক্ষা। আচ্ছা তুমি এটা কিভাবে খুঁজে পেলে। তুমি কি জ্যোতিষী!"

 আয়েশা:-"হ্যাঁ, স্পষ্টতই, আমার পরীক্ষার প্রশ্নপত্র আছে, আমি পরীক্ষা দিয়েছি, তাহলে বুঝতাম কয়টি সঠিক উত্তর দেওয়া হয়েছে এবং কয়েকটি খোঁচা দিয়ে কতগুলি দেওয়া হয়েছে। যাইহোক,তোমার কত এসেছে ? মার্ক্স্ ?

 নেহা:-"আমার 15/20। আমি বোর্ড পরীক্ষায় পাশ করতে পারব কি না ভয় পাচ্ছি।"

 আয়েশা:- "সমস্যা নেই। চেষ্টা কর, হয়ে যাবে। ঠিক আছে বাই।"

 নেহা:-"কি হয়েছে আয়শা তোমার? এমন ভাবে করে কথা বলছিস কেন?"

 আয়েশা:-"তুমি বলো তোমার কি হয়েছে? তুমি শুধু বলেছিলে অর্থনীতি নিয়ে তোমার কোনো আগ্রহ নেই। তোমার প্রিয় বিষয় বায়োলজি । তুমি শুধু বলেছিলে তুমি গাইনোকোলজিস্ট হতে চাও তোমার প্রিয় বিষয় বায়োলজি ।

 নেহা কিছুক্ষণ চুপ করে থেকে তারপর বিষণ্ণ কণ্ঠে বললো:- "তুমি কি ক্ষতস্থানে নুন ছিটাতে পছন্দ কর? এখন আমি আর্টস নিয়েছি, আমি হতে পারব না। এখন বর্তমানের দিকে মনোযোগ দাও। কাল আবার অর্থনীতি। . পাঠ 3 প্রযোজনা সম্পূর্ণ অধ্যায়ের একটি পরীক্ষা, স্যার বললেন। কাল পড়ে আসপে "।

 আয়েশা:-"এখন কোনো দেরি না করেও করতে হবে। এখন এই বিষয়ের বই থেকে আমাদের দুজনের অর্র্যাঞ্জ বিয়ে ঠিক হয়েছে। আমরা একটু একটু করে বেছে নিয়েছি।"


 নেহা হেসে প্রশ্ন তুলল:-"অর্র্যাঞ্জ ম্যারেজ ?"

 আয়েশা :-"না হলে আর কি? আমরা এই সাবজেক্টগুলোকে একটু ভালোবেসেই বেছে নিয়েছি। আমার বায়োলজি, সাইকোলজি, সোসিওলজি, ফিলোসফি এবং রিলিজিয়ন স্টাডিতে আগ্রহ আছে। যদি পড়তাম তাহলে অবশ্যই টপ করতাম। সাফল্যের নিশ্চয়তা। কিন্তু এখন আমি আগ্রহী নই।যারা বাবা-মায়ের বাছাই করা, এটা সমাজের বাছাই করা বিষয়, তারা অ্যারেঞ্জড ম্যারেজ, বুঝলি না!

 এই কথা শুনে নেহা হাসি থামাতে না পেরে বললো:- "বাহ! কী আবিষ্কার। বিয়ে আর প্রেমের বিয়ে এখন অর্র্যাঞ্জ পড়ালেখা আর প্রেমের পড়াশুনার আয়োজন।"


 আয়েশা:-"আচ্ছা আমার মনে প্রশ্ন জাগছে। আমরা কেন পড়াশুনা করব?"

 নেহা:- "কারণ তোমাকে ভালো কাজ করতে হবে আর তুমি সমাজের চোখে ভালো হতে পারবে ।"

 আয়েশা :-"স্বামী বিবেকানন্দের একটা ছোট বই আছে যেটাতে তার ভাবনাগুলো লেখা আছে, বইটার নাম এডুকেশন ফর ক্যারেক্টার। তিনি নন, অনেকে মহাপুরুষ বলেছেন আমাদের শিক্ষার আসল মানে হচ্ছে শেখা অর্থাৎ কিছু শেখা এবং নিজের উপকার করা। সমাজের সেবা করা। শিক্ষার মাধ্যমে আমরা কিছু না কিছু শিখতে থাকি। শুধু ডিগ্রি আর চাকরি নয়।

 নেহা:-"হ্যাঁ, ঠিক তাই। আচ্ছা, ফিলালের জন্য এই টপিক বন্ধ করে আগামীকাল পরীক্ষা আছে, তার জন্য পড়। বাই।"

 আয়েশা:-"ওকে বাই"।


 কল রাখার পরে, আয়েশা তার হোম স্ক্রিনের ওয়ালপেপারের দিকে তাকায় এবং কিছুটা বিষণ্ণ হাসি দিয়ে উক্তিটি পড়ে - "শিক্ষা হল পরিপূর্ণতার প্রকাশ যা মানুষের মধ্যে ইতিমধ্যেই রয়েছে"।


Rate this content
Log in

More bengali story from Ashfia Parvin

Similar bengali story from Inspirational