AYAN DEY

Tragedy


3  

AYAN DEY

Tragedy


আসছি আমি মা

আসছি আমি মা

3 mins 615 3 mins 615

মা,


ভালো আছো ?

না না ... আজ আর বলা সাজে না ।

পুজো আসছে মা , আরও একটা পুজো ।

শ্রীচরণেষু লেখার ভনিতাটা করলাম না ।

বাড়ি ছেড়েছিলে মা তুমি যেবার ...

মানে তোমায় ছাড়তে বাধ্য করেছিলাম 

সেবারেও কিছুদিনের মধ্যেই ছিলো পুজো ।

আমি যত্ন করে তোমায় ট্যাক্সিতে তুলে

ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাবো বলে ...

ক্ষ - ক্ষমা কথাটা এই ইতর বলতে পারে না ...

আশ্রমের চৌকাঠ অবধি নিয়ে গেলাম ;

তুমি মুহূর্তে আমার দিকে চমকে তাকালে ।

তারপর , কিচ্ছু না বলে এগিয়ে গেলে ।

আজ আরও একটা পুজো চলে এলো ,

বাড়িতে আমি আগাছা হয়েই ছিলাম 

আজ সেটা সাফ করে দিলো ওরা -

মানে আমার দুই ছেলে , দেখালো আশ্রমের পথ ।

তোমার বৌমা যাওয়ার বেলায় 

খুব করেছিলো আক্ষেপ , করেছিলো দোষারোপ ।

কিন্তু তখনও এইদিনের কথা ভাবেনি ও ,

কালচক্র বুঝি এভাবেই সম্পূর্ণ হ​য় ।

বন্ধুর বাড়ি দুদিন থেকে কিছু কাজ সেরে

আসবো মা , তোমার কাছে , তোমার পাশে ;

তুমি দেবে তো আমায় আদর ?


ইতি,

অমিয় 


প্রিয় অমিয়বাবু ,


আপনাকে বৃদ্ধাশ্রমে স্বাগতম ।

বছর বিশেক আগের কথা আমি ভুলিনি ,

ভুলিনি তারও পনেরো বছর আগের কথা ।

মায়ের সাথে কাটাবেন জীবন ... হায় রে !

তাঁকে কোথায় পাবেন এখন সরকারবাবু ?

জীবনের শেষ দশটা শর​ৎ যিনি একাই কাটালেন ,

বার বার চিঠি লিখে , ফোন করেও

একটিবারও তিনি কোনও উত্তর পেলেন না ;

পাগলের মতো তখন পাশে চেয়েছেন আপনাকে ।

প্রতিমাসের খরচাবাবদ টাকাটা কিন্তু পৌঁছে যেত ,

তবু মুখটা একবারও দেখলেন না আপনার ।

এখানে এসে আমার সাথে দেখা ;

দেখেই ভরে যায় চোখ দুঃখভরা জলে ।

শ্রীতমা নামটা কি মনে পড়ে আপনার ?

আপনার বিয়ে ঠিক হয়েছিলো যার সাথে ,

বিয়ের দিন যে দেখলো আপনাকে

প্রেমিকার সাথে গাঁটছ​ড়া বাঁধা অবস্থায় ।

" একটা নার্স হয়ে স্বপ্ন দেখো কী করে

আই . এ. এস কে পাওয়ার ? "

মনে পড়ে সেই কথাগুলো ?

উনি নিজের মেয়ের চেয়েও বাসতেন ভালো ,

আমায় বুকে টেনে নিয়েছিলেন ।

আপনার কপালটা আমায় হাসাচ্ছে ,

মাকে জীবিত অবস্থায় পাশে রাখলেন না ,

এখন চাইছেন ফের তাঁকে পাশে ;

কিন্তু হায় যে যায় সে তো ফিরে নাহি আসে !


ইতি,

শ্রীতমা


শ্রীতমার চিঠি প​ড়ে ৭০ বছরের অমিয় 

লজ্জায় ঘেন্নায় নিজেই গেলো ভেঙ্গে ।

বন্ধুর বাড়ি ছেড়ে পা বাড়ালো নিরুদ্দেশে ,

কানে তখন অবিরত " খোকা ঘুমোলো " ধ্বনি ।

পাগলের মতো ছুটতে লাগে সে ,

কোথায় যাবে , কী করবে জানে না সে ।

কখনও " মা তুমি কোথায় ? " বলে চেঁচালো ;

কখনও মাথার চুল ছিঁড়তে লাগলো ।

সেকেণ্ড ব্রিজের উপর দুরন্ত গাড়িগুলো ,

হাওয়ার বেগে ছুটছে যেন সব ,

রেলিং ধরে স্রোতস্বিনীর পানে চায় , বলে ওঠে ,

" ওই তো ওই তো মা দাঁড়িয়ে ওখানে । "

মা যেন বলছেন , " আয় খোকা , আয় ...

কতদিন দেখিনি তোকে ... আয় ...

আমার ফাঁকা বুকটা এবারে পূর্ণ হবে ।

কোথায় ছিলি বাবা , কোল শূন্য করে ?

যাওয়ার বালাতেই দেখা দিলি না ...

এবার তো আয় আমার কাছে ... "

অমিয় বললো , " আসছি আমি মা ,

সব ভুলে খোকাকে জ​ড়িয়ে নেবে তো ?

খোকাকে ক্ষমা করতে পারবে তো ?

তোমার সাথে চিরকালীন হয়ে থাকবো । "

এই বলে গঙ্গাবক্ষে ঝাঁপ দিলো সে ,

মা বুঝি খোকাকে এদ্দিনে কাছে পেলো ,

খোকা অমোঘ শান্তিতে কাটাবে পরলোক ।

আর কোনোদিন তারা আলাদা হবে না ।


Rate this content
Log in

More bengali poem from AYAN DEY

Similar bengali poem from Tragedy