Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published
Participate in 31 Days : 31 Writing Prompts Season 3 contest and win a chance to get your ebook published

Sucharita Das

Others


1  

Sucharita Das

Others


ভালোলাগার কিছুক্ষণ

ভালোলাগার কিছুক্ষণ

2 mins 329 2 mins 329

ডিয়ার ডায়েরি, 


 

সময় যেন থেমে আছে।সেই ব্যস্ততা আজ আর আমাদের কারুর মধ্যেই নেই। দুপুরে আজ বসেছিলাম পুরানো অ্যালবাম গুলো নিয়ে। বেশ কিছু পুরানো অ্যালবাম আছে। আমাদের বিয়ের অ্যালবাম থেকে শুরু করে, মেয়ের ছোট থেকে বড়ো হয়ে ওঠার সমস্ত স্মৃতি সেইসব অ্যালবামে ছবির মাধ্যমে বন্দী করা আছে। মেয়ের আবদারে আগে বসলাম বিয়ের অ্যালবামের সংগ্ৰহ নিয়ে। সত্যি দিনগুলো কিভাবে পার হয়ে যায়। মনে হচ্ছে এই তো সেদিন বিয়ে হয়ে এসেছিলাম। দেখতে দেখতে সুখে দুঃখে কেটে গেল বাইশটি বছর। কতো রকমের স্মৃতির সাক্ষী এই অ্যালবাম। হানিমুনে গিয়ে হারিয়ে ফেলেছিলাম ফুলশয্যার দিনে বরের পরানো আংটি খানি। সেই আংটি উদ্ধার করা হয়েছিল এক জেলের কাছ থেকে। কিছু পয়সা দিতে হয়েছিল সেটিকে উদ্ধার করতে। আংটি উদ্ধার করে ফেরবার সময়ের সেই বিজয়ী হবার মুহূর্ত বন্দী হয়ে আছে আজও অ্যালবামে। বিয়ের ফটোতে যারা আছে বা আছেন , তাদের অনেকেই আজ আমাদের মধ্যে নেই। কিছু স্মৃতি বেদনা দেয়, কিছু দেয় আনন্দ।


এরপর মেয়ের ছোট থেকে বড়ো হয়ে ওঠার প্রত্যেকটি মুহূর্তের ফটো দেখতে শুরু করলাম। যদিও মায়ের মনের অ্যালবামে তার সন্তানের জন্ম থেকে বড়ো হয়ে ওঠার সব ছবি ই তোলা থাকে। তাও সেটা তো মা ছাড়া অন্য কেউ দেখতে পায়না।আজ মেয়ে আর ওর বাবার সঙ্গে সেইসব মুহূর্ত ভাগ করে নিলাম সারাদিন। সময় কারুর অপেক্ষা করে না। সে তো নিজের খেয়ালে বয়ে চলে। সেদিনের সেই ছোট্ট মেয়ে আজ অষ্টাদশী।এখন সে আদরে, শাসনে আমাকে ভরিয়ে রাখে। আমাকে শিখিয়ে দেয় সযত্নে আমার অজানা জিনিসগুলোকে। কর্তা আমার চিরকালের শান্ত স্বভাবের মানুষ। কোনো কিছুতেই তার বিরক্তি নেই। একটা অসাধারণ মানিয়ে নেওয়ার ক্ষমতা চিরকালই আছে তার মধ্যে। যে গুণটির বড়ই অভাব আমার মধ্যে। হয়তো সেকারণেই এত বছর সুখে দুঃখে কেটে গেল। ওই যে কথায় আছে না, বিপরীত ধর্মী বস্তু একে অপরকে আকর্ষণ করে বেশী। আমাদের ক্ষেত্রেও সেটিই হয়েছিল আর কি। দাম্পত্য কলহ তো সব দম্পতির ই সঙ্গী। আমরাও তার ব্যতিক্রম না। তবে সেটাও আমার দিক থেকেই হয়। কিন্তু অপর পক্ষের কোনো রকম যোগদান না পেয়ে, কিছুক্ষণ পর নিজেই শান্ত হয়ে যাই। 



এরপর আগের বেড়াতে যাওয়ার অনেক ছবি দেখলাম। তার মধ্যে ক্যালিম্পং এর কিছু অসাধারণ প্রাকৃতিক দৃশ্য ও ছিলো। চেরাপুঞ্জির মেঘের সামনে দাঁড়িয়ে তোলা কিছু ছবি আজও মনকে সেই একই ভাবে ছুঁয়ে গেল। এছাড়াও প্রচুর বেড়াতে যাবার ছবি পেলাম। স্মৃতিচারণের মাধ্যমে কিছুক্ষণের জন্য আমরা যেন সেখানে পৌঁছে গিয়েছিলাম মনে হলো। এগুলো সব মেয়ে যখন ছোট ছিল তখনকার। এখনকার বেড়াতে যাবার সব ছবি তো ল্যাপটপে বন্দী। সেগুলোও দেখবো পরে।আজ অ্যালবামের ছবি দেখেই মন ভরে গেল। এই ঘরবন্দী দশাতেও পুরানো ভালোলাগার কিছু মুহূর্ত আজ আমাদের সঙ্গী হলো।


Rate this content
Log in